প্রচ্ছদ

বিএনপির উস্কানী মূলক বক্তব্য নিয়ে যুবদল-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ

                         মঠবাড়িয়া সমাচার ২২ ডিসেম্বর ২০২০ , ১:৫৫:০৫ প্রিন্ট সংস্করণ

               

স্টাফ রিপোর্টার: মঠবাড়িয়ায় মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) দুপুরে যুবদলের কর্মী সভায় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কটুক্তি ও উস্কানী মূলক বক্তব্য এবং উপজেলা পরিষদের গেটে স্থাপিত শতবর্ষ পালনে ক্ষণ গণনার বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাংচুরের প্রতিবাদে যুবদলের কর্মি সভায় হামলা চালিয়ে ওই সভা পন্ড করে দিয়েছে বিক্ষুব্দ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ কর্মিরা। এসময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে ২১ জন আহত হয়। গত সংসদ নির্বাচনে চার দলীয় জোটের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. রুহুল আমিন দুলালসহ অন্তত ১৫ জন ও যুবলীগ- ছাত্রলীগের আরও ৬ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত রুহুল আমীন দুলাল, যুবদল নেতা জসিম উদ্দিন ফরাজি ও ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকী আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। হামলার সময় বেশ কয়েকটি মটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। এ ঘটনায় পৌর শহরে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। বড় ধরনের সংঘর্ষ এড়াতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে বিকেলে উস্কানীমূলক বক্তব্য ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাংচুরের প্রতিবাদে উপজেলা আ’লীগ মঙ্গলবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে ঘটনার নিন্দা ও জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন।অপরদিকে, উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক মো. রুহুল আমিন দুলাল জানান, দুপুরে আমার বাসার সামনে যুবদলের শান্তিপূর্ণ কর্মী সভার আয়োজন করা হয়। এ সভায় যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানস্থলে পৌছার আগেই বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীরা ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। এসময় তারা ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালায়। তিনি জানান, আমার ৪০ বছরের রাজনীতিতে আমি এ ধরনের ন্যাক্কারজনক হামলার শিকার হইনি। এতে আমিসহ জেলা বিএনপির বিশেষ সম্পাদক কেএম হুমায়ূন কবীর, যুবদলের আহবায়ক মাসুম বিল্লাহ, যুবদল নেতা জসিম ফরাজি, মামুন বিল্লাহ, রিপন মুন্সী, জাহাঙ্গীর বাদল, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ, ছাত্রদল নেতা ইমরান, সোহেল, হাসান, আলাউদ্দিন, রুবেল, মিলন ও সাইখ আমীন আহত হয়।উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ‘লীগ সদস্য রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ জানান, যুবদলের কর্মী সভায় মাইক বাজিয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য, আ‘লীগ ও প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে উস্কানী মূলক বক্তব্য রেখে মৌলবাদীদের সরকারের বিরুদ্ধে উস্কে দেয়। এসময় যুবলীগ কর্মিরা প্রতিবাদ করলে যুবদল ও ছাত্রদল সন্ত্রাসীরা যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাদের ওপর হামলা চালায় এবং উপজেলা পরিষদে বিভিন্ন অফিসে ইট, পাটকেল নিক্ষেপ করে। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও সাংবাদিকের মটর সাইকেলসহ ৮/১০ টি সাইকেল ভাংচূর করে। এসময় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ৬ জন নেতা কর্মি আহত হয়। আহতরা হলো- স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মামুন, আমিনুল, ছাত্রলীগ নেতা জিদান, আজাদুল, মুইন, ইরান মৃধা। এদিকে, বিকেলে উপজেলা আ’লীগের উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি পৌর মেয়র রফিউদ্দিন আহমেদ ফেরদৌস, উপজেলা চেয়ারম্যান মো: রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এমাদুল হক খান, বীরমুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা শাহ আলম দুলাল, বীরমুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম জালাল, আরিফ উল-হক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান সিফাত প্রমুখ। পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) কাজী শাহ নেওয়াজ জানান, শহরে সকল প্রকার সহিংষতা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আ.জ.ম মাসুদুজ্জামান মিলু জানান, শহরের পরিস্থিতি এখন শান্ত। কোন পক্ষই লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ