সম্পাদকীয়

৯ মাস পরে কবর থেকে ময়না তদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন

  প্রতিনিধি ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ , ৬:০২:৪৮ প্রিন্ট সংস্করণ

সমাচার ডেস্কঃ স্ত্রীর ষড়যন্ত্রে হত্যা, ৯ মাস পর তোলা হলো নাসিরের লাশ। স্কুলশিক্ষক নাসির হাওলাদারের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে।স্ত্রীর ষড়যন্ত্রে হত্যার শিকার বরগুনার স্কুলশিক্ষক নাসির হাওলাদারের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের বরইতলা এলাকা থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, চিকিৎসক ও পুলিশ কর্মকর্তাদের উপস্থিতি তার মরদেহ উত্তোলন করা হয়। হত্যার ৯ মাস পর মোবাইলের কল রেকর্ডের সূত্র ধরে নাসির হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করে পুলিশ। পুলিশ জানায়, মামলা তদন্তের স্বার্থে বরগুনার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নাসিরের মরদেহ উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেন। সেই আলোকে বুধবার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানভীর আহমেদ, বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার জয়রাজ হোসেন ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা স্বরজিত কুমারের উপস্থিতিতে কবর থেকে মরদেহ উত্তোলন করা হয়। মরদেহের অবশিষ্ট অংশ বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেখানে ময়নাতদন্ত শেষে ফরেনসিক পরীক্ষা-নীরিক্ষার জন্য মহাখালীর ল্যাবে পাঠানো হবে। বরগুনা সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) শহীদুল ইসলাম জানান, গত বছরের ২৩ মে রাতে বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের গুলবুনিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নাসির হাওলাদার নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর কারণ হিশেবে উল্লেখ করা হয়েছিল স্ট্রোক। মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই তার মরদেহ দাফন করেন স্বজনরা। এ ঘটনার ৯ মাস পর গত ১০ ফেব্রুয়ারি মোবাইল ফোনে নাসিরকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার কথোপকথনের রেকর্ড ফাঁস হয়। ওই রেকর্ড পুলিশের কাছে পৌঁছানোর পর বুধবার রাতেই নাসিরের ভাই আবদুল জলিল বরগুনা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর পুলিশ নাসিরের স্ত্রী ফাতেমা মিতু (২৪) এবং মিতুর পরকীয়া প্রেমিক রাজু মিয়াকে (২০) আটক করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রী মিতু ও তার সহযোগী রাজু নাসিরকে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। নিহত নাসির বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের গোলবুনিয়া এলাকার গয়েজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি গালবুনিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন। গ্রেপ্তার ফাতেমা মিতু বরগুনা সদর উপজেলার আয়লা-পাতাকাটা এলাকার মো. মাহতাব মৃধার মেয়ে। তিনি বরগুনার থানাপাড়া এলাকায় বাবার ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। রাজু মিয়া ঢলুয়া ইউনিয়নের গুলবুনিয়া এলাকার বারেক মিয়ার ছেলে।মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানা পুলিশের ওসি (অপারেশন) স্বরজিত কুমার জানান, চাঞ্চল্যকর এ হত্যার ঘটনায় করা মামালার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে গত ১২ ফেব্রুয়ারি বরগুনা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কাছে মরদেহ ময়নাতদন্তের আবেদন করি। আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৮ ফেব্রুয়ারি আদালতের বিচারক ইয়াসিন আরাফাত মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেন। এ কাজে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, চিকিৎসক ও তদন্ত কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন আদালত। মরদেহ উত্তোলনের পর প্রাথমিকভাবে মাথায় খুলিতে কালো দাগ, নাকের সামনের অংশ ভাঙা শনাক্ত হয়েছে বলেও এই তদন্ত কর্মকর্তা জানান। তিনি জানান, নিহতের মরদেহের অংশ বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ল্যাবে পাঠানো হবে। শিগগিরই তদন্ত শেষে পুলিশ আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করবে।

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ