1. admin@mathbariasamachar.com : admin :
শিরোনাম :
মঠবাড়িয়ায় উপজেলা আওয়ামীলীগ স্থায়ী দলীয় অফিস উদ্বোধন মঠবাড়িয়ায় গণমাধ্যম সপ্তাহের আলোচনা ও ইফতার পার্টি মঠবাড়িয়ায় মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের আয়োজনে আলোচনা ও ইফতার পার্টি বরিশালে পুলিশকে ‘ম্যানেজ’ করে চলে স্পিডবোট মঠবাড়িয়ায় বিদেশ নেওয়ার প্রতারণা করে টাকা নিয়ে আত্মসাৎ ফ্রেন্ডস একতা যুব সংগঠন এর প্রবাসী পরিষদ শাখা সাধারণ সম্পাদক শাহীন খাঁনের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষ্যে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। মঠবাড়িয়ায় দূর্বৃত্তের দেয়া চেতনা নাশকে ৬ জন অচেতন পিরোজপুর প্রেস ক্লাবের আয়োজনে বিশ্ব গণমাধ্যম দিবস পালন মঠবাড়িয়ায় কলেজ ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামীদের স্বজনরা ভূক্তভোগি বিরুদ্ধে মিথ্যা ভিডিও ছড়ানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন মঠবাড়িয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন

মঠবাড়িয়ায় সরকারি খাল দখল করে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপনের অভিযোগ

  • প্রকাশনা : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৩৮ বার

মঠবাড়িয়া  প্রতিনিধি : পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া পৌর শহরের ফিস মার্কেটের পাশে সরকারি খাল ভরাট করে অবৈধ বায়োগ্যাস প্লান্ট স্থাপনের অভিযোগ উঠেছে। খালটির ভরাটকৃত অংশ থেকে স্বাভাবিক পানি প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে।

মঠবাড়িয়া কে,এম মার্কেট সুইজগেট থেকে মিরুখালী রোডস্থ কালাইমৃধা নূরানী মাদ্রাসা পর্যন্ত খালটির এক কিলোমিটার অংশ দখল করা হয়েছে। দুই পাশে তৈরি করা হয়েছে বসত ঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করায় বৃহদাকার এ খালটি এখন ড্রেনে পরিণত হয়েছে। প্রভাবশালীরা প্রকাশ্যে দিনে দুপুরে স্থাপনা তৈরি করলেও সাধারণ দখলদাররা খালটিতে রাতের আধারে ইট,খোয়া ও বালুভর্তী বস্তা ফেলে পজিশন বৃদ্ধি করায় খালটি মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে। পৌরসভার স্টীল ব্রীজ থেকে মন্দির ব্রীজ পর্যন্ত খালটির পাশে রাস্তা নির্মাণ করার সম্ভাবনাময় সুযোগ থাকলেও ফিস মার্কেট প্রজেক্টের আওতায় অতিরিক্ত একটি পাকা ঘর ও তার পাশে খাল ভরাট করে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপনা করায় রাস্তা তৈরির সম্ভাবনাটি অনেকটা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে এবং অন্যান্য দখলদাররা এতে নিরাপদ বোধ করছে।

খালটির অস্তিত্ব বিলুপ্ত হলে ঘটিচোরা, ছোট হারজি,বড় হারজি ও সবুজ নগর সহ বেশ কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতা তৈরি হবে। স্থানীয় কৃষকরা জানান, খাল দখল করার কারনে শুষ্ক মৌসুমের সময় জমি সেচ করার মত একদিকে যেমন পর্যাপ্ত পানি পাওয়া যায় না অন্যদিকে বর্ষার মৌসুমে জলাবদ্ধতায় বিলে নামা যায় না। বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ এর ধারা ৬ এর (ঙ) উপধারায় উল্লেখ করা হয়েছে, জলাধার হিসেবে চিহ্নিত জায়গা ভরাট বা অন্য কোনভাবে শ্রেণি পরিবর্তন করা যাবে না। কিন্তু এই আইন লঙ্গন করেই বায়োগ্যাস প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

পৌর সভার ইঞ্জিনিয়ার আবু সালেক ফিস মার্কেট নির্মানের প্লানে বায়োগ্যাস প্লান্ট উল্লেখ আছে বললেও জেলা পরিষদের খাল ভরাট করার ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কোন অনুমোদন আছে কিনা এমন প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি। পৌর সভার জমি না জেলা পরিষদের জমি তাও বলতে পারেননি তিনি। শুধু এতটুকুই জানেন যে, সরকারি জমিতে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা রেবেকা খান জানান, অনুমোদন ছাড়া জেলা পরিষদের জমিতে কোন প্রজেক্টের কাজ করা বে-আইনি। বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে

Facebook

আজকের বাংলা তারিখ

  • আজ শুক্রবার, ৭ই মে, ২০২১ ইং
  • ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)
  • ২৪শে রমজান, ১৪৪২ হিজরী

Please Share

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 mathbaria samacher
আইটি সাপোর্ট web Disgine it