ঢাকা

জিয়া কতোজন মুক্তিযোদ্ধা হত্যা করেছে তার হিসাব দিতে হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  প্রতিনিধি ২৭ আগস্ট ২০২১ , ৭:৩২:৩৩ প্রিন্ট সংস্করণ

মঠবাড়িয়া সমাচার ডেস্কঃ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান বলেছেন: জিয়াউর রহমান কতোজন মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করেছে তার হিসাব জনগণকে দিতে হবে।

আজ শুক্রবার তেজগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মিলনায়তনে আয়োজিত শোক দিবসের আলোচনা ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও করোনাকালীন লকডাউনে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণের আয়োজন করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তেজগাঁও কলেজ শাখা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারকে হত্যার মাধ্যমে দেশকে আবার পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিলেন কিছু কুচক্রী মহল, তারা জানত বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, বঙ্গবন্ধুর রক্ত যদি বেঁচে থাকে তাইলে তাদের পরিকল্পনা কোনদিন সফল হবে না, তাই তারা শিশু রাসেলকেও হত্যা করেছে, হত্যা করে তারা বসে থাকেনি, তারা তার পরিবারের নামে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়েছে যাতে দেশের মানুষ তার পরিবারকে ঘৃণা করে।

‘‘কিন্তু সত্য কোন দিন চাপা থাকে না, ইতিহাস যারা বিকৃতি করেছিল আজ তারাই ইতিহাস হয়ে গেছে, দেশের জনগণ বিশ্বাস রেখেছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ওপর, আর সেই বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে শত বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আজ দেশ মধ্যম আয়ের দেশ, আজ নিজেদের অর্থে পদ্মা ব্রিজ হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ এর ঘাতকের রক্ত যাদের শরীরে সঞ্চারিত তারা আজও আগষ্ট মাস এলেই উজ্জীবিত হওয়ার চেষ্টা করে। তারা দেশের অগ্রগতিকে টেনে ধরতে চায় কিন্তু তারা তা কোন দিনও পারবে না, কারণ আমাদের আছে একজন জননী জননেত্রী শেখ হাসিনা, আসুন সবাই দেশ ও জনগণের স্বার্থে এক সাথে কাজ করি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করি।

১৫ আগস্টের নেপথ্যের কুশীলবদের চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়েছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করোনা কালীন সময়ে লকডাউনে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন।

কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বক্তৃতা করেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তেজগাঁও কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রশিদ ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার ফরিদুর রহমান খান ইরান

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ