কৃষি ও বাণিজ্য

মঠবাড়িয়ায় চাচাদের আমন ধানের বীজতলা কুপিয়ে নষ্ট করেছে ভাতিজা

  প্রতিনিধি ২৭ আগস্ট ২০২১ , ৪:২৮:৩০ প্রিন্ট সংস্করণ

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় ভাতিজার দুর্বৃত্তায়নে সর্বস্ব হারাতে বসেছে চাচারা। জীবনের ভয়ে ভাতিজার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না তারা। রাতের আধারে ভাতিজার হাত থেকে জীবন বাঁচাতে সন্ধ্যা হলেই ঘরের দরজা বন্ধ রাখেন চাচারা। রাতের আধারে চাচাদের মারতে না পেরে কখনো গোয়াল ঘরে আগুন, কখনো পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ নিধন, কখনো ফসল নষ্ট করে ভাতিজা। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে আমন ধানের বীজতলা কুপিয়ে ও বীজ নিধন ওষুধ প্রয়োগ করে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে।

জানা গেছে, উপজেলার বেতমোর রাজপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড নিজামিয়া ঘোপখালী গ্রামের মৃত নূর মোহাম্মদ আকনের ৩ ছেলে বেলায়েত হোসেন, আমির হোসেন ও জাকির হোসেন পশ্চিম ঘোপখালী নতুন বাড়িতে থাকেন। ৮ ভাইবোন ও আত্মীয় স্বজনদের সর্বসম্মতিক্রমে ওই ৩ ভাই দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস ও ভোগ দখল করে আসছেন।

এদিকে নূর মোহাম্মদের অন্য ২ ছেলে নূর হোসেন ও আলী হোসেন পুরনো বাড়িতে বসবাস ও ভোগ দখল করে আসছে। নূর মোহাম্মদ জীবিত থাকতেই ৫ ছেলেদের এভাবে পজিশন বুঝিয়ে দেন। কিন্তু আলী হোসেনের ছেলে হুমায়ুন কবির পুরনো বাড়ি থেকে ৩ কিলোমিটার দূরত্বে নতুন বাড়িতে ভাগ বসাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

নতুন বাড়িতে জমি দখল করতে ২০২০ সালের ১২ মার্চ গোয়াল ঘরে আগুন দেওয়া হয়। এতে ৪টি গরু গুরুতরভাবে পোড়া দগ্ধ হয়। বসতঘরের বারান্দায় আগুন ধরে যায়। দ্রুত আগুন নিভাতে সক্ষম হওয়ায় বসত ঘরটি রক্ষা হয়। এ ঘটনায় গরুর মালিক বেলায়েত হোসেন বাদী হয়ে ১ এপ্রিল মঠবাড়িয়া থানায় মামলা করেন। মামলা নং- ০২/১৪৬। মামলাটি সর্বশেষ তদন্ত করেন এস আই আসলাম তালুকদার। মামলাটি ফাইনাল রিপোর্ট দেওয়ার পর আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে ওই মামলার প্রধান আসামী হুমায়ুন কবির। গভীর রাতে চাচাদের নতুন বাড়িতে বেআইনি জনতাবদ্ধে প্রবেশ করে ক্ষতিসাধন করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মনিরুজ্জামান জানান, ২ দিন আগে বেলায়েত গংদের বীজতলা পা দিয়ে পাড়িয়ে নষ্ট করার বিষয়টি সরেজমিনে দেখেছি। গত রাতে আবার বীজতলা নষ্ট করার খবর পেয়েছি। আবার সরেজমিনে গিয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে সামাজিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ শওকত হোসেন জানান, টানা বর্ষনে জলাবদ্ধতায় আমন ধানের বীজ সংকটে পড়েছে কৃষকরা। বর্তমানে মঠবাড়িয়া উপজেলার কৃষকরা ভান্ডারিয়া সহ দুরবর্তী বিভিন্ন উপজেলা থেকে বীজ সংগ্রহ করছে। এ অবস্থায় বীজতলা নষ্ট করাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী এক ইঞ্চি জমিও ফাঁকা রাখা যাবে না। প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের এ ধারাকে যারা বাধাগ্রস্ত করতে চায় প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে বদ্ধ পরিকর

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ