জাতীয়

শিল্পী সমিতির বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের অভিযোগ আলমগীরের

  প্রতিনিধি ২৮ আগস্ট ২০২১ , ৭:৪২:৪৯ প্রিন্ট সংস্করণ

চিত্রনায়িকা পরীমণি গ্রেফতার হওয়ার পরপরই বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে তার সদস্যপদ স্থগিত করার ঘোষণা দেয়। বিষয়টি নিয়ে এরইমধ্যে অনেক জলঘোলা হয়েছে। দোষী সাব্যস্ত হওয়ার আগেই একজন শিল্পীকে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার পরিবর্তে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে ঘটা করে সংবাদ সম্মেলন করে সদস্যপদ স্থগিত করা হয়। বিষয়টি নিয়ে চলচ্চিত্র অঙ্গনের মানুষেরাই সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। কারও কারও মতে, কঠিন এ সময়ে পরীর পাশে দাঁড়ানো উচিত ছিল সমিতির। পরে আইন অনুযায়ী পরী দোষী সাব্যস্ত হলে সদস্যপদ স্থগিতের উদ্যোগ নেওয়া যেত।সদস্যপদ স্থগিত করার সিদ্ধান্তের বিষয়ে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান দাবি করেছেন, ‘পরীমণির সদস্যপদ স্থগিত করার সিদ্ধান্তটি কমিটির ২১ সদস্য মিলে নিয়েছেন।’ এ কমিটিতে আলমগীর, ইলিয়াস কাঞ্চন, সোহেল রানার মতো চলচ্চিত্রের জ্যেষ্ঠ শিল্পীরা রয়েছেন।তবে ঢালিউডের প্রভাবশালী অভিনেতা ও নির্মাতা আলমগীর বলেছেন, ‘শিল্পী সমিতির বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদ কিংবা সমিতির কোনো সদস্যই পরীমনির সদস্যপদ স্থগিত করার বিষয়ে আমার সঙ্গে কোনো কথা বলেনি। কোনো মতামত নেওয়া হয়নি আমার। সমিতির কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগও করেননি। অবশ্য আমি এ সমিতির বড় পদের কেউ নই, সাধারণ একজন সদস্য মাত্র। এর পরও এ বিষয়ে আমার নাম জড়ানো হলো, তা আমার বোধগম্য নয়। শিল্পী সমিতির কোনো কর্মকর্তা যদি আমার নাম বলে থাকেন, সেটি অন্যায়। এটি চরম মিথ্যাচার

Print Friendly, PDF & Email

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ