বরিশাল

মঠবাড়ীয়া ক্লিনিকের বিল ১২ হাজার, পরিশোধ করতে নবজাতক বিক্রির চেষ্টা

                         মঠবাড়িয়া সমাচার ১০ নভেম্বর ২০২১ , ২:০১:২৪ প্রিন্ট সংস্করণ

               

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ক্লিনিকের বিল পরিশোধ করতে না পেরে নবজাতক সন্তানকে বিক্রি করে দেওয়ার চেষ্টা চালায় এক দম্পতি। তবে বিষয়টি গোপনে জানতে পেরে সেই নবজাতককে উদ্ধার করে ক্লিনিকের বিল পরিশোধ করে মা–বাবার কোলে তাকে ফিরিয়ে দেয় পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় শহরের বেসরকারি মাতৃসদন ও স্বাস্থ্য সেবা ক্লিনিকে এ ঘটনা ঘটে। মঠবাড়িয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইব্রাহীম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। ক্লিনিক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়নের হারজি নলবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা নুরনবী। তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আমেনা আক্তারকে গত ৮ নভেম্বর (সোমবার) শহরের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মাতৃসদন ও স্বাস্থ্য সেবা ক্লিনিকে ভর্তি করেন। পরদিন সেখানে অস্ত্রোপচার হলে ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। এতে তাদের চিকিৎসা ও ওষুধ বাবদ বিল আসে ১২ হাজার টাকা। এ বিল দিতে নবজাতকের বাবার পক্ষে সম্ভব না হওয়ায় তারা বাধ্য হয়ে নবজাতক সন্তানকে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন।

তবে মুহূর্তেই সন্তান বিক্রির খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এ খবরের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মঠবাড়িয়া সার্কেল) মোহাম্মদ ইব্রাহীম থানার কুইক রেসপন্স টিমকে দ্রুত ক্লিনিকে পাঠান। সেখানে নবজাতককে পিতার সাধ্য অনুযায়ী বিল চুকিয়ে শিশুটিকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।
নবজাতকের বাবা নুরনবী বলেন, তিনি গ্রামে কৃষিকাজ করেন। তার স্ত্রীকে বাড়িতে স্বাভাবিক ডেলিভারি করানোর জন্য চেষ্টা চালানো হয়। পরে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে বাধ্য হয়ে ক্লিনিকের আসতে হয়েছে। ১২ হাজার টাকা ক্লিনিক বিল দেওয়ার মত সাধ্য আমার ছিলনা। সন্তানকে ফেরত পেয়ে আমরা খুশি।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইব্রাহীম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, টাকার অভাবে ক্লিনিকের বিল পরিশোধ করতে পারছিলেন না ওই দম্পতি। পরে তারা বাধ্য হয়ে সন্তান বিক্রি করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। ক্লিনিকের সব হিসাব মিটিয়ে নবজাতককে মা–বাবার কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আজীবন এই নবজাতকের যেকোনো সহায়তায় মঠবাড়িয়া সার্কেল অফিস ও মঠবাড়িয়া থানা পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ