বরিশাল

ভান্ডারিয়ায় মাদ্রাসার নির্বাচনী ক্যাম্প করা নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ

                         মঠবাড়িয়া সমাচার ১১ জানুয়ারি ২০২২ , ৪:৩৭:২৭ প্রিন্ট সংস্করণ

               

মঠবাড়িয়া সমাচার ডেস্কঃ পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া শাহাবুদ্দিন সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও অভিভাবক সদস্যদের নির্বাচনী ক্যাম্প করা নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মো. আব্দুল্লা আল সোহান মিয়া (৩২) নামের এক যুবক আহত হয়েছে। সে ভান্ডারিয়া পৌর সভার ১নম্বর ওয়ার্ডের মো.জিয়াউর রহমান কাঞ্চন আলী মিয়ার ছেলে এবং উপজেলা যুবলীগের সদস্য।

এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার (১১জানুয়ারি) ভান্ডারিয়া শাহাবুদ্দিন সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও অভিভাবক সদস্যদের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। ঐ ভোট গ্রহন অনুষ্ঠানে ভোাটের আগের দিন সোমবার বিকালে মাদ্রাসার সামনে আঃ জলিল মিয়ার জমিতে অপর এক অভিভাবক সদস্য প্রার্থী নির্বাচনী ক্যাম্প করতে গেলে তাতে বাধাঁ দেয় জমির মালিক পক্ষ ।

এসময় মুন্সি বাড়ির সাইদুল মুন্সি, জিহাদ মুন্সি, শাহআলম মুন্সি ,অভিভাবক সদস্য প্রার্থী আল আমিন আমম্মেদ গং এর সাথে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে অপর এক অভিভাবক সদস্য প্রার্থী মো. তমিজ উদ্দিন কাজল মিয়ার ভাইয়ের ছেলে সোহান মিয়া আহত হলে তাকে স্বজনরা উদ্ধার করে প্রথম ভান্ডারিয়া হাসপাতালে পরে বরিশাল শের -ই -বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় সোমবার রাতে জমির মালিক জলিল মিয়ার ছেলে তুহিন মিয়া বাদি হয়ে সাইদুল মুন্সি, জিহাদ মুন্সি, শাহআলম মুন্সি ,অভিভাবক সদস্য প্রার্থী আল আমিন আমম্মেদ সহ চার জনকে বিবাদি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা দায়ের করার পরেই অভিভাবক সদস্য প্রার্থী আল আমিন আমম্মেদ এবং মো. মন্নান হাওলাদার পলাতক রয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ঐ মাদ্রাসার শিক্ষক ও অভিভাবক সদস্যদের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয় । নির্বাচন পরিচালনা করেন উপজেলা মাধ্যমিক অ্যাকাডেমিক সুপার ভাইজার মো. নজরুল ইসলাম। সকাল ৮টায় ভোট গ্রহন শুরু হয়ে বিকাল ৪টায় শেষ হয়। শিক্ষক প্রতিনিধি তিনটি পদের বিপরীতে ৬জন এবং অভিভাবক সদস্য পদে তিন জনের বিপরীতে ৪জন প্রতিদ্বন্দিতা করেন। ভোট গণনা শেষে নির্বাচন কর্মকর্তা উপস্থিত পুলিশ, প্রার্থী ও সমর্থকদের সামনে আনুষ্ঠানিক ভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন।

এতে শিক্ষক পতিনিধি পদে মনোয়ার হোসেন পলাশ, বশির উদ্দিন আহম্মেদ ও মাহফুজুর রহমান এবং অভিভাবক সদস্যদের মধ্যে জমি সংক্রান্ত মামলার ৪নম্বর আসামি আল আমিন আমম্মেদ প্রথম, জেপি নেতা মো. ফিরোজ চাপরাশি দ্বিতীয় ও মো. তমিজ উদ্দিন কাজল মিয়া নির্বাচিত হয়েছে।

এ বিষয়ে ভান্ডারিয়া থানার ওসি তদন্ত মো. মেহেদী হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলার আসামিরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ