প্রচ্ছদ

বোয়ালমারীতে ফসলি জমির মাটি কাটায় ভেকুতে আগুন ও জেল জরিমানা

                         মঠবাড়িয়া সমাচার ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ , ৭:৫৮:০১ প্রিন্ট সংস্করণ

               

আনেয়ার জাহিদ,ফরিদপুর জেলাসংবাদাতাঃ ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের বাজিদাতপুর গ্রামে ভেকু দিয়ে মাটি কাটার অপরাধে ভেকুতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম।এ সময় মাটি বহনকারী তেলজুড়ী গ্রামের কাজী মহিদুল ইসলামের টলিসহ তিনটি টলি ভাংচুর করা হয়।

মাটি কাটার অপরাধে জমির মালিক নুরুল আলমকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। বৃহসপতিবার (৩ফেব্রুয়ারী) দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালান ইউএনও ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রেজাউল করিম। শুক্রবার, ( ৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে, গনমাধ্যম কে নিশিত করেন উপজেলা প্রশাসন।

জানা যায়, বাজিদাতপুর গ্রামের নুরুল আলম শেখের জমি থেকে ভেকু দিয়ে মাটি কেটা হচ্ছিল। খবর পেয়ে ইউএনও অভিযান চালায়। অপরদিকে, বৃহস্পতিবার বিকালে রুপাপাত ইউনিয়নের সোতালিয়া গ্রামে ভেকু দিয়ে মাটি কাটার অপরাধে আরেকটি ভেকু পুড়িয়ে দেন ইউএনও। এ সময় জমির মালিক বিলাশ শেখকে ৭ দিনের জেল দেন।

ভেকু পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে ঘটনার দিন ফরিদপুর জেলা প্রশাসককের নিকটসহ সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন ক্ষতিগ্রস্থ কাজী মহিদুল ইসলাম।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম বলেন, ভেকু দিয়ে মাটি কাটার অপরাধে দুইটি ভেকু পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এক ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ও আরেকজনকে ৭ দিনের জেল দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে, নগরকান্দা উপজের গ্রামাঞ্চল ,ফরিদপুর সদরের চর এলাকা,ও সদরপুরের বিভিন্ন ইটভাটা মালিকরা দালালদের মাধ্যমে ফসলি জমির মাটি কেটে তাদের ভাটায় তুলছেন।

নগরকান্দার স্কুল শিক্ষক মোঃ মুজিবর হেসেন ইনকিলাবকে জানান, নগরকান্দায় ৭/৮ জনের, মাটি/ বালু/ ভরাট বিকিকিনির একটি প্রভাবশালী দালাল চক্র আছে। এরা কৃষকদের ফুসলিয়ে একটু বেশী দামের লোভ দেখিয়ে, ফসলি জমির মাটি বিক্রিতে উৎসাহীত করছেন। এদের আইনের আওতা আনার রাখছপন তিনি।

ইনকিলাবের সাথে কথা হয়, সালথার ইউসুফদিয়ার বিশিষ্ট পরিবেশেবাদী মোঃ বেলায়েত হেসেনের সাথে তিনি বলেন, সালথায় ইদানীং প্রচন্ড রকমের পরিবেশ ব্যাহত হচ্ছে।

একদিকে দালারা কৃষকদের ভুল বুঝিয়ে,ফসলি জমি চড়া দামে বিক্রির লোভ দেখিয়ে চকের পর চক কেটে পুকুরে পরিনত করছে। অপরদিকে, একটি ট্রলির সিন্ডিকেট শহরের প্রাণকেন্দ্র দিনরাত এই মাটি,বালু রাতা-রাতি টেনে নিয়ে গোটা শহরের পরিচ্ছন্ন পরিবেশকে ধূলা বালুর শহরে পরিনত করছেন। পাশা-পাশি, এই বালু সিন্ডিকেটের কারনে বাংলা ড্রেজার সিন্ডিকেটিও প্রচন্ড শক্তিশালী হয়ে উঠছে। এদের লাগাম এখনই টেনে না ধরলে, সালথায় প্রচন্ড পরিবেশ বিপর্যয় ঘটতে পারে।

উল্লেখিত, বিষয়গুলে জরুরী ভিওিতে সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনও সাহেবদের নেক নজরে আনার জোর দাবি জানিয়েছন, ভুক্তভোগীরা।

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ