জাতীয়

কুয়াকাটায় রেকর্ড সংখ্যক পর্যটকের আগমন

                         মঠবাড়িয়া সমাচার ১১ মার্চ ২০২২ , ১:৫৬:৩৮ প্রিন্ট সংস্করণ

               

স্টাফ রিপোর্টার, কলাপাড়া : কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে আগমন ঘটেছে রেকর্ড সংখ্যক পর্যটকের। যেন তিল ধারনের ঠাই নেই। আগত পর্যটকরা কেউ সৈকতের বেঞ্চিতে বসে উপভোগ করছেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। কেউ ঝাউবাগান, শুটকি পল্লী, লেম্বুর চর, বৌদ্ধ বিহার, রাখাইন পল্লী ও ইলিশ পার্কসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্পট ঘুরে বেড়াচ্ছে। এদের মধ্যে অনেকেই প্রিয়জনদের সাথে সেল্ফি তুলেছে।

পর্যটকের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ ১৮ কিলোমিটার সৈকত এখন মুখরিত। আগত এ সকল পর্যটকরা সৈকতের নোনা জলে গাঁ ভাসিয়ে আনন্দ উন্মাদনায় মেতেছেন। পর্যটকের এমন ভীড়ে বুকিং রয়েছে হোটেল মোটেল। পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ফিরে এসেছে প্রাণচাঞ্চল্য। তবে আগত পর্যটকরা যেন স্বাস্থ্যবিধি মানতেই চাইছেন না।

এ ব্যাপারে ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে বার বার সতর্কতামূলক মাইকিং করতে দেখা গেছে। পর্যটক মুরাদ হাসান বলেন, পরিবারের সবাইকে নিয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে কুয়াকাটায় এসেছি। সকালে সৈকত দাঁড়িয়ে সূর্য উদয়ের বিরল দৃশ্য দেখলাম। যা আমাদের মুগ্ধ করেছে। তবে এতো মানুষ আমি একসঙ্গে কখনো দেখিনি। অপর পর্যটক ইমরান হাসান বলেন, এর আগেও কয়েবার কুয়াকাটায় এসেছি।

তখন সৈকত অনেক বড় ছিলো। এখন পরিধি অনেকটা ছোট হয়ে গেছে। অনেক গাছ ভেঙে সৈকতে পরে আছে। এটা দেখতে তেমন ভালো লাগেনি। সৈকতের পরিবেশটা বেশ ভালো লেগেছে। অনেক পর্যটক এক সঙ্গে যে যার মতো আনন্দ করছে, এটাও বেশ ভালো লেগেছে। ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটার টোয়াক’র সাধারণ সম্পাদক কেএম জহির বলেন, এভাবে পর্যটকের সংখ্যা বাড়তে থাকলে করোনাকালীন লোকসান পুষিয়ে নিতে পারবেন ব্যবসায়িরা।

গত দুই বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পর্যটকের আগমন ঘটেছে কুয়াকাটায়। মহিপুর থানার ওসি আবুল খায়ের বলেন, প্রতিদিনই থানা পুলিশের একটি টিম পর্যটকদের নিরাপত্তায় কাজ করছে। কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ জোনের এএসপি আব্দুল খালেক বলেন,

পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বার বার সৈকত এলাকায় সতর্কতামূলক মাইকিং করা হচ্ছে। আগতদের পর্যটকদের নিরাপত্তাসহ সকল দর্শনীয় স্পটে ট্যুরিষ্ট পুলিশ মোতায়েন রয়েছ বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

আরও খবর

Sponsered content

ব্রেকিং নিউজ